মমিনবাগ জমিদার বাড়ী

1
472

প্রাচীন কালে বর্তমান শেরপুর জেলাতে বসবাস করতো ভূইয়াগণ, যখন দেশ স্বাধীনতা লাভ করে, তখন তাঁরা বাংলাদেশ ছেড়ে পাশ্ববর্তী দেশ ভারতে চলে যায়। তাঁরা যখন বাংলাদেশ ত্যাগ করে তখন এক স্থানীয় হিন্দু ভদ্রলোক কে পুরো বাড়ির জমি স্বেচ্ছায় দিয়ে যান। ঠিক তেমনি ইতিহাস থেকে বলা যায় শেরপুরের মমিনবাগের বাড়িটি ছিলো ভূইয়াদের।

মমিনবাগ

ওই স্থানীয় হিন্দু প্রজা থেকে ১৯৭৭ সালে শেরপুরের আরেক স্থানীয় মুসলিম ব্যক্তি উসমান গণী পুরো জমিটি ক্রয় করে নেন। তারপর তিনি নিজ উদ্যোগে বাড়ির দালানকে নতুন আঙ্গিকে সাজাতে থাকেন এবং চতুর্দিকের সৌন্দর্য কে বৃদ্ধি করার জন্য নানারকম পদক্ষেপ নেন। এখনো পুরো বাড়িটিতে ঐতিহ্যের ছাপ রয়েছে। ব্যস্ত নগরীর খোলামেলা স্থান হিসেবে এ বাড়িটি সব ধরনের দর্শনার্থীর কাছে প্রথম পছন্দ।

বাড়িটি প্রাকৃতিক সৌন্দর্য যেমনঃ নানা প্রজাতির গোলাপ ফুলের বিরল সমাহার, বাড়ির প্রবেশ পথের পাশে শান্ত, মিঠাপানির ও পাকা ঘাট বিশিষ্ট একটি প্রাচীন দিঘী রয়েছে।

বাড়িটির নাম পূর্বে মমিনবাগ ছিলো না, উসমান গণীর ঘনিষ্ঠ সহচর ছিলেন মমিন সাহেব। তিনি ছিলেন আধ্যাত্মিক রকমের লোক, তার কিছু গুনাগুনও ছিলো তাই তাকে কেন্দ্র করে মমিনবাগ নামকরণ করা হয়।

শেরপুর শহরের থানা মোড়/নিউ মার্কেট থেকে নতুন বাস (সোনার বাংলা) স্ট্যান্ড যাওয়ার পথে হাতের ডান পাশে গৌরীপুর এলাকায় অবস্থিত।